Home Jalpaiguri জলপাইগুড়িতে আরামবাগ ফুড মার্ট বন্ধ করল পুরসভা

জলপাইগুড়িতে আরামবাগ ফুড মার্ট বন্ধ করল পুরসভা

95
0

জলপাইগুড়ি,৯ মে : জলপাইগুড়িতে আরামবাগ ফুড মার্ট বন্ধ করল পুরসভা।মেয়াদ উত্তীর্ণ খাবার রাখার অভিযোগে বন্ধ করা হল ফুড মার্ট।এদিন সকালে জলপাইগুড়ি পুরসভা ও জলপাইগুড়ি কোতয়ালির পুলিশ যৌথভাবে বিভিন্ন হোটেল ও ফুড মার্টে অভিযান চালায়।পাশাপাশি শহরের নামী হোটেলে দুপুরে তেমন খাবারই পেলেন না পুলিশ ও পুরসভা।জলপাইগুড়ি শিল্প সমিতি পাড়ার আরামবাগ ফুড মার্টে হানা দেয় পুলিশ।সেখানে গিয়ে আইসি বিশ্বাশ্রয় সরকার আরামবাগ চিকেনের খোঁজ করেন।সেখানে ফুড মার্টের কর্মী বলেন আমাদের এখানে চিকেন শেষ তবে কিছু মাংসের খারার আছে তা মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে।এরপরেই পুলিশ ফ্রিজ থেকে আরামবাগ ফুড মার্টের বেশকিছু খাদ্য সামগ্রী বাজেয়াপ্ত করেন।দেখা যায় পনির,আইসক্রিম সহ মাংসের কিছু খাদ্য সামগ্রীর মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। দোকানের কর্মিরা পুলিশ কে  জানায় আমরা এগুলো বিক্রি করছি না।তবে আলাদা করে আমরা ফ্রিজের মধ্যেই রেখে দিয়েছিলাম।পুলিশের দাবি এগুলো বিক্রি হচ্ছে না বুঝব কি করে।এরপর পুরসভার এক্সিকিউটিভ শান্তনু মৈত্র বলেন এই ফুড মার্টে কিছু মেয়াদ উত্তীর্ণ খাবার আমরা পেয়েছি আর তার জন্য তাদের দোকান বন্ধ করতে বলেছি।আগামীকাল দোকানের লাইসেন্স, ফুড লাইসেন্স নিয়ে পুরসভায় আসতে বলা হয়েছে।এদিন দোকান বন্ধ করে দেয় পুরসভা।এদিকে কোতয়ালি থানার আইসি বিশ্বাশ্রয় সরকার বলেন আমরা এখানে মেয়াদ উত্তীর্ণ খাবার পেয়েছি।পুরসভা দোকান বন্ধ করে দিয়েছে।তবে মজার বিষয় জলপাইগুড়ি শহরের কদমতলা মোড়ে  ষ্টার ক্যাটাগরির হোটেলে পুলিশ ও পুরসভা হানা দিলেও কিছুই পাইনি।হোটেলে ফ্রিজারে তেমন খাবারই পাওয়া গেল না।প্রশ্ন উঠছে এত বড় হোটেলে দুপুরে খাবারই পেল না এটা কি করে সম্ভব।পুরসভার এক্সিকিউটিভ শান্তনু মৈত্র বলেন আমরা হোটেল থেকে তেমন কিছুই পাইনি। গতকাল ঐ হোটেলের সামনে অন্য হোটেলে হানা দিলেও এই হোটেলে পুলিশ ও পুরসভা যায় নি।অভিযানের একদিন পর কেন একই জায়গায় অন্য হোটেলে যাওয়া হল তা নিয়ে শহরে প্রশ্ন উঠেছে।কদমতলা মোড়ের ওই থ্রী স্টার হোটেলের জেনারেল ম্যানেজার অরুপ গঙ্গোপাধ্যায় জানান, আমাদের এখানে আই এস ও সার্টিফিকেট খাবার পরিবেশন করা হয়।এদিন কোনও বাসি,পচা খাবার কাঁচা বা রান্না করা কিছুই মেলেনি।