Home Jalpaiguri বকেয়া বেতনের দাবি , জাতীয় সড়ক অবরোধ চা বাগান শ্রমিকদের

বকেয়া বেতনের দাবি , জাতীয় সড়ক অবরোধ চা বাগান শ্রমিকদের

47
0

মালবাজার,১৬ মে : দুই মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে বুধবার সকাল থেকে মীনা মোড়ে তৃনমূলের ঝান্ডা লাগিয়ে জাতীয় সড়ক অবরোধ করল মাল ব্লকের ডানকানস গ্রুপের বাগরাকোট চাবাগানের শ্রমিকেরা। এ ঘটনায় জাতীয় সড়কের দুই ধারেই কয়েক হাজার যাত্রীবাহী বাস সহ ছোটবড় সমস্ত গাড়ি দাঁড়িয়ে পড়ে । প্রচন্ড গরমে দুর্ভোগের মধ্যে পড়ে যায় যাত্রী সহ অনেকেই। এইভাবেই সকাল নয়টা থেকে অবরোধ চলার পর প্রায় ছয় ঘন্টার পর ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট নির্মাল্য বাগচির হস্তক্ষেপে বিকেল তিনটে নাগাদ অবরোধ উঠে যায়। ফের যান চলাচল স্বাবাভিক হয়।অন্যদিকে ছয় সপ্তাহের বেতনের দাবিতে এদিন সকালে মেটেলি ব্লকের একই গ্রুপের নাগেস্বরী চা বাগানের শ্রমিকেরা মেটেলি থানায় ডেপুটেশন জমা দিয়েছে।এদিন শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে দ্রুত বেতন সমস্যা না মিটলে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দেওয়া হয় । বাগরাকোট চাবাগানের শ্রমিক চম্পা মঙ্গর বলেন, গত দুই সপ্তাহ ধরে আমরা কোন বেতন পাচ্ছিনা।আয় বলতে এই চাবাগান থেকেই । হাতে টাকাপয়সা নেই ।তাই একবেলা খেয়ে অন্যবেলা না খেয়ে কাটাচ্ছি। বেতন না পেয়ে বাধ্য হয়েই আমরা জাতীয় সড়ক অবরোধ করেছি।বাগরাকোট চাবাগানের তৃনমুলের শ্রমিক নেতা দীননাথ প্রসাদ বলেন, শুধু এই দুই মাসের বেতন নয়। এর আগেও আমরা বহু টাকা মেলেনি  মালিকের কাছ থেকে।এছাড়াও আমরা রেশন পাইনা,স্বাস্থ পরিষেবা নেই। বহু কষ্টে আমরা জীবনযাপন করছি। দেয়ালে পিঠ ঠেকেই আমরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছি। এরপরও যদি সমস্যা না মেটে তাহলে আমরা এই জাতীয় সড়কেই বসবাস শুরু করব।মালের বিডিও ভুষন শেরপা বলেন, আমরা মালিকপক্ষের সাথে যোগযোগের চেষ্টা করছি যাতে দ্রুত সমস্যা মিটে যায়। প্রসঙ্গত ডানকানস গ্রুপের চা বাগান গুলিতেই প্রায় একইরকম অবস্থা চলছে। স্থায়ি ও অস্থায়ি নিয়ে মোট শ্রমিকসংখ্যা ৩০০০ এই চাবাগানে গত একবছর ধরেই এই সমস্যা চলে আসছে।অন্যদিকে মেটেলি ব্লকের একই গ্রুপের নাগেস্বরি চাবাগানেও প্রায় ১৬০০ শ্রমিক ছয় সপ্তাহ ধরে বেতন পাচ্ছেনা। গত মঙ্গলবার তাদের বেতন দেওয়ার কথা থাকলেও বাগান কতৃপক্ষ  তা দেয়নি। এরফলে এদিন কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে এদিন শ্রমিকদের সাথে নিয়ে দ্রুত বেতন সমস্যা মেটানোর দাবি জানানো হয়েছে । না হলে বৃহত্তর আন্দোলনে নামা হবে বলে শ্রমিক নেতা মানিক শীল জানিয়েছে।