Home Malda রান্নাঘর সামলে মালদায় ভোটের লড়াইয়ে দুই গৃহবধু

রান্নাঘর সামলে মালদায় ভোটের লড়াইয়ে দুই গৃহবধু

115
0

মালদা ,৭ এপ্রিল : রান্নাঘর আর স্বামী সন্তানদের নিয়ে সংসার l জীবনে কোনও দিন রাজনীতি করেননি l কিন্তু হঠাৎ দুই গৃহবধূর মধ্যে রাজনীতিতে নামার ঝোক দেখে হতবাক পরিবার থেকে পাড়া -প্রতিবেশীরা l মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নকে আদর্শ করেই জেলা পরিষদের আসনে তৃণমূলের হয়ে ভোটের লড়াইয়ে নেমে পড়েছেন দুই গৃহবধূ l শনিবার মালদা প্রশাসনিক ভবনে হাবিবপুর ও ইংরেজবাজার ব্লকের ৫ এবং ২৬ নম্বর আসন থেকে তৃণমূলের হয়ে প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন মিঠু দাস সাহা (৩২) ও অর্চনা মন্ডল (৩৫) l সংসার যেমন ওরা সামলাচ্ছেন ,ঠিক তেমনই রঙে তুলি নিয়ে সহকর্মীদের সঙ্গে ভোটের প্রচার ও দেয়াল লিখনে বেরিয়ে পড়ছেন l তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন জানিয়েছেন , অনেক আসন মহিলা সংরক্ষিত হয়েছে l তাই এবার রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশে এই দুই নতুন মুখকে জেলা পর্ষদের প্রার্থী করানো হয়েছে l মালদা জেলা পর্ষদের হাবিবপুর ব্লকের ৫ নম্বর আসনে এবারে তৃণমূল কংগ্রেসের নতুন মহিলা প্রার্থী মিঠু দাস সাহা l যে পরিবারটি কোনও দিন রাজনীতির আঙিনায় ছিলো না l অন্যদিকে ইংরেজবাজার ব্লকের মালদা জেলা পর্ষদের ২৬ নম্বর আসনের নতুন মহিলা প্রার্থী হয়েছেন অর্চনা মন্ডল (৩৫) l তিনিও রাজনীতিতে নতুন মুখ l তবে অর্চনাদেবীর স্বামী কল্যাণ মন্ডল গতবারের জেলা পর্ষদের নির্বাচিত সদস্য l হাবিবপুর ব্লকের বুলবুলচন্ডী গ্রাম পঞ্চায়েতের কচুপুকুর গ্রামের বাসিন্দা মিতু দাস সাহা l তিনি বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় এম.এ সম্পূর্ণ করেছেন l আরেক জন তৃণমূল প্রার্থী অর্চনাদেবীও উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় এম .এ করেছেন l তিনি অমৃতি গ্রামের বাসিন্দা l মিঠু দেবীর বক্তব্য ,তার স্বামী প্রকাশ সাহা পেশায় ব্যাবসায়ী l ৯ ও ৪ বছরের দুই ছেলেমেয়ে সেন্ট মেরিতে পড়ে l পরিবারে শ্বশুর ,শ্বাশুড়ি সহ অনেকেই রয়েছে l সবটাই সামলাতে হয় তাকে l এরপর রাজনীতির লড়াই l তার সাফ কথা সবাই আত্ম সুখী হয়ে যাচ্ছে l সোশ্যাল মিডিয়ায় শুধু সমালোচনার ঝড় চলছে l কিন্তু কেউ প্রকাশ্যে ময়দানে নেমে দেশ অথবা দেশের জন্য কিছু করে দেখানোর উদ্যোগী হন না l মুখ্যমন্ত্রী মহিলাদের নিয়ে উন্নয়নের কথা ভেবেছেন l তাই দিদিমনির আদর্শকে হাতিয়ার করেই নির্বাচনে নেমেছি l অন্যদিকে আরেক তৃণমূল মহিলা প্রার্থী অর্চনাদেবী বলেন ,নারী সমাজ যে অবহেলিত নই তা প্রমান করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় l তাই তার আদর্শকে সন্মান জানিয়ে তৃণমূল দলের হয়ে প্রার্থী হয়েছি l ঘরে বসে সমালোচনাটা করা সহজ l কিন্তু ময়দানে নেমে কাজ করাটা কঠিন l স্বামী ,দুই ছেলেমেয়ে ও শ্বাশুড়ি তাদের নিয়ে আমার সংসার l সব কাজই করতে হয় l তা বলে ভোটের প্রচার থেমে নেই l বাড়ি বাড়ি যাচ্ছি মানুষের কাছে মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নের কথা তুলে ধরছি l রাজ্যে তৃণমূল আসার পর নারীদের অধিকার কতটা বেড়েছে তও প্রচারে তুলে ধরা হচ্ছে